বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, সভা-জনসভা বা মিছিলের ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে করা আবেদন ও  নিবন্ধন ফিরিয়ে দেয়ার দাবি করায় নেতাদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগের আবেদনের আপিল শুনানি হবে আজ বৃহস্পতিবার। 

গত ১০ই জুন রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে পুলিশের অনুমতি নিয়ে সমাবেশের আয়োজন করে ঢাকায় ব্যাপক শোডাউন করে জামায়াত। ওই সমাবেশে জামায়াত নেতারা সকল রাজবন্দির মুক্তি ও দলের নিবন্ধন ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানান।

বিচারাধীন এই আপিলের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জামায়াতে ইসলামী যেন সভা-সমাবেশ, মিছিলসহ কোনো ধরনের রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করতে না পারে, সেই বিষয়ে এই নিষেধাজ্ঞা চেয়ে গত ২৬শে জুন আপিল বিভাগে এই নতুন আবেদন করা হয়। এছাড়া আদালতে মামলা বিচারাধীন থাকা অবস্থায় সমাবেশ করে নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন দাবি করায় আদালত অবমাননার অভিযোগ এনে আলাদা একটি আবেদন করেন রেজাউল হক চাঁদপুরী। তার পক্ষে আবেদন দুটি করেন ব্যারিস্টার তানিয়া আমীর। ওই সমাবেশে আদালত অবমাননার আবেদনে বিবাদী করা হয়েছে জামায়াতের আমীর ডা. শফিকুর রহমান, সেক্রেটারি জেনারেল ড. গোলাম পরওয়ার, নায়েবে আমীর ডা. আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ জামায়াতের আমীর নুরুল ইসলাম বুলবুল, নায়েবে আমীর এডভোকেট হেলাল উদ্দিন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান, পুলিশের মহাপরিদর্শক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন ও ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার খোন্দকার গোলাম ফারুককে।

সংগঠনটির সমাবেশ নিষিদ্ধ ও নেতাদের বিরুদ্ধ আদালত অবমাননা, এই দুই আবেদনে পক্ষভুক্ত হতে অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন, শ্যামলী নাসরিন, শাহরিয়ার কবির, শাওন মাহমুদ, রফিকুন্নবী, মাহফুজা খানম, আবুল হাশেম, তানভীর মোকাম্মেলসহ ৪২ জন বিশিষ্ট নাগরিক গত ২৭ জুলাই আদালতে আবেদন করেন। 

গত ৩রা আগস্ট আপিল বিভাগের কাছে আইনজীবীরা আবেদনটি দ্রুত শুনানির জন্য প্রার্থনা জানালে প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী আজ শুনানির জন্য আজকের দিন ধার্য করেন।
তরীকত ফেডারেশনের নেতা রেজাউল হক চাঁদপুরীসহ কয়েকজনের আবেদনে এক দশক আগে ২০১৩ সালের ১লা আগস্ট নির্বাচন কমিশন (ইসি) জামায়াতের নিবন্ধন সংখ্যাগরিষ্ঠ মতের ভিত্তিতে হাইকোর্টের একটি বৃহত্তর বেঞ্চ অবৈধ বলে রায় দেন। তারপর থেকে জামায়াত দলীয় পরিচয়-প্রতীক নিয়ে কোনো নির্বাচনে অংশ নিতে পারছে না। হাইকোর্টের দেওয়া ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে জামায়াত। সেই আবেদন আপিল বিভাগে বিচারাধীন।

মানবজমিন থেকে সংগৃহীত.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *